টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট (এসডিজি) বাস্তবায়নে এসোসিয়েশন অফ ওয়ার্কার্স ফর অল্টারনেটিভ রুরাল ডেভেলপমেন্ট- এওয়ার্ড সংস্থার ভূমিকা সক্রান্ত প্রতিবেদন।
January 2, 2018 , 8:53 am

সংস্থার সংক্ষিপ্ত পরিচিতিঃ
এসোসিয়েশন অফ ওয়ার্কার্স ফর অল্টারনেটিভ রুরাল ডেভেলপমেন্ট- এওয়ার্ড একটি স্থানীয় উন্নয়ন সংগঠন। সংস্থাটি সমাজসেবা অধিদপ্তর, এনজিও এফেয়ার্স ব্যুরো এবং এমআরএ এর রেজিষ্ট্রেশন/ লাইসেন্স প্রাপ্ত অরাজনৈতিক,অলাভজনক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন।

এখানে উল্লেখ্য ১৯৯৮ ইংরেজি হতে সিলেট জেলার কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় স্বাস্থ্য,শিক্ষা ও দারিদ্র বিমোচণের লক্ষ্যে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক প্রকল্প বাস্তবায়ন করে আসছে।
আপনাদের পত্র মোতাবেক ২০১৬ ইং হতে ৩১ শে ডিসেম্বর ২০১৭ পর্যন্ত টেকসই উন্নয়নে অভীষ্ট লক্ষ্যমাত্রা যে সকল কার্যক্রম সম্পাদন করা হয়েছে তার বর্ণনা নি¤েœ উপস্থাপন করা হল।

টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট ১.
সর্বত্র সব ধরনের দারিদ্র্যের অবসান

ক্রমিক নং লক্ষমাত্রা
১.৪ ২০৩০ সালের মধ্যে সকল নারী ও পুরুষ, বিশেষ করে দরিদ্র ও অরক্ষিত জনগোষ্ঠীর অনুকূলে অর্থনৈতিক সম্পদ ও মৌলিক সেবা সুবিধা, জমি ও অপরাপর সম্পত্তির মালিকানা ও নিয়ন্ত্রণ, উত্তরাধিকার, প্রাকৃতিক সম্পদ, লাগসই নতুন প্রযুক্তি এবং ক্ষুদ্র ঋণসহ আর্থিক সেবা প্রাপ্তির ক্ষেত্রে সমঅধিকার প্রতিষ্ঠা করা।

# উক্ত লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে এওয়ার্ড নি¤œলিখিত কার্যসমূহ সম্পাদন করেছে।

বিষয় এসডিজি লক্ষমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে বাস্তবায়িত কার্যক্রমের বিবরণ
সংগঠন তৈরি

উল্লেখিত সময়ের মধ্যে পুরুষ ও মহিলাদের জন্য আলাদা আলাদা ভাবে ৪০ টি গ্রাম সংগঠন তৈরি করা হয়েছে। যার সদস্য সংখ্যা প্রায় ১২০০।
প্রশিক্ষন
সচেতনতা বৃদ্ধিমূলক প্রশিক্ষনঃ গ্রামীন দরিদ্র মানুষকে সমিতির মাধ্যমে একত্রিত করে গ্রাম সংগঠনের সাধারণ সদস্যদের মধ্য থেকে সচেতনতা বৃদ্ধি মূলক প্রশিক্ষণ প্রদান করেছে। ৪০ টি সংগঠনের / সমিতি থেকে ৩ জন করে ১২০ জনকে উক্ত প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে।
নেতৃত্বের বিকাশ নেতৃস্থানীয় সভাপতি, সম্পাদক ও অর্থ-সম্পাদকদেরকে নেতৃত্ব বিকাশ প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে ১২০ জনকে।
হিসাব সংরক্ষণ প্রতিটি সংগঠন থেকে কোষাধক্ষকে সংগঠনের সাধারণ হিসাব নিকাশ সংরক্ষণের জন্য হিসাব রক্ষণ ব্যাবস্থার উপর ৪০ জনকে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে।
ঋণ বিতরণ ২০১৬ থেকে ২০১৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত সংগঠিত গ্রাম সংগঠন সমূহের সদস্যদের মধ্যে ১৪৯৪৮০০০ টাকা ঋণ বিতরণ করা হয়েছে।

টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট ২.
ক্ষুধার অবসান, খাদ্য নিরাপত্তা ও উন্নত পুষ্টিমান অর্জন এবং টেকসই কৃষির প্রসার

ক্রমিক নং লক্ষমাত্রা
২.২
২০২৫ সালের মধ্যে অনুর্ধ্ব ৫ বছর বয়সী খর্বকায় ও বিকাশরুদ্ধ শিশু বিষয়ক আন্তর্জাতিকভাবে সম্মত সকল অভীষ্ট অর্জন এবং কিশোরী, গর্ভবতী ও স্তন্যদায়ী নারী ও বয়স্ক জনগোষ্ঠীর পুষ্টি চাহিদা পুরণসহ ২০৩০ সালের মধ্যে সকল ধরণের অপুষ্টির অবসান।

# উক্ত লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে এওয়ার্ড নি¤œলিখিত কার্যসমূহ সম্পাদন করেছে।
বিষয় এসডিজি লক্ষমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে বাস্তবায়িত কার্যক্রমের বিবরণ
কিশোরী সংগঠন তৈরি কর্ম এলাকার কিশোরীদেরকে নিয়ে পাঠচক্রের মাধ্যমে প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরিচর্যা,জীবনমান উন্নয়ন ও কুঠির শিল্পের মাধ্যমে পারিবারিক আয়বর্ধন কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়েছে। কর্মএলাকায় মোট ৬০০ জন কিশোরীকে ৩০ টি কিশোরী ক্লাবের মাধ্যমে উল্লেখিত বিষয় সমূহের উপর প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে।
বাড়ির আঙ্গিনায় সবজি চাষ সবজি চাষের মধ্য দিয়ে পারিবারিক আমিষের চাহিদা পূরণ ও উৎপাদিত সবজি বাজারে বিক্রয়ের মাধ্যমে পারিবারিক আয় বৃদ্ধি করা সম্ভব হয়েছে।
২.৩ ২০৩০ সালের মধ্যে ক্ষুদ্র পরিসরে খাদ্য উৎপাদনকারী, বিশেষ করে নারী, আদিবাসী জনগোষ্ঠী, পারিবারিক কৃষক, পশুপাখি পালনকারী ও মৎস্যচাষীদের আয় ও কৃষিজ উৎপাদনশীলতা দ্বিগুণ করা এবং এই লক্ষ্যে ভূমি, অন্যান্য উৎপাদনশীল সম্পদ ও উপকরণ, জ্ঞান, আর্থিক সেবা, বিপণন, মূল্য সংযোজনের সুযোগ ও কৃষি-বহির্ভূত কর্মসংস্থানে তাদের নিরাপদ (সুরক্ষিত) ও সমান সুযোগ নিশ্চিত করা সহ অন্যান্য উদ্যোগ গ্রহণ।

# উক্ত লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে এওয়ার্ড নি¤œলিখিত কার্যসমূহ সম্পাদন করেছে।
বিষয় এসডিজি লক্ষমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে বাস্তবায়িত কার্যক্রমের বিবরণ
কৃষি সম্প্রাসারণ কর্ম এলাকার কৃষি কাজে নিয়োজিত দরিদ্র চাষিদেরকে নিয়ে খাদ্যে সয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের লক্ষ্যে আধুনিক চাষাবাদের উপর ধান চাষের উপরে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে। উক্ত কার্যক্রম সম্পাদনের জন্য স্বল্পসুদে কৃষক পরিবারপ্রতি ৫০০০-১০০০০ টাকা পর্যন্ত ১ বছর মেয়াদি ঋণ প্রদান করা হয়েছে।
মৎস চাষ কর্ম এলাকার মৎস চাষে নিয়োজিত দরিদ্র সদস্যদেরকে নিয়ে আধুনিক মৎস চাষের উপর প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে। উক্ত কার্যক্রম সম্পাদনের জন্য স্বল্পসুদে পরিবারপ্রতি ৫০০০-১০০০০ টাকা পর্যন্ত ১ বছর মেয়াদি ঋণ প্রদান করে তাদের অব্যবরিত পুকুর পুনঃখননের মাধ্রমে মাছ চাষের উপযোগী করে দেওয়া হয়েছে। ঋণের টাকা দিয়ে সদস্যগন মাছের পোনা ও মাছের খাবার ক্রয় করেছেন। উক্ত কর্মসূচির মাধ্যমে পারিবারিক মাছের চাহিদা পূরণ ও আমিষের চাহিদা পূরণ করা হয়েছে। এছাড়াও চাষকৃত মাছ বিক্রয়ের মাধ্যমে আর্থিক মুনাফা অর্জন করা সম্ভব হয়েছে।
মনিপূরী তাত শিল্পের উন্নয়নমূলক প্রকল্প এওয়ার্ড এর কর্মএলাকা কোম্পানীগঞ্জের উত্তর রনিখাই ইউনিয়নের মাজেরগাও নামক গ্রামে বসবাসকারী আদিবাসী মনিপূরী মহিলারা কোমর তাত দিয়ে পরিদেয় কাপড় তৈরি করে ব্যবহার করে থাকে। তাদের এই কোমর তাতকে আধুনিকায়ন করে বাড়তি পারিবারিক আয় উপার্যনের ব্যবস্থা করার জন্য স্বল্প সুদে ঋণ প্রদান করা হয়েছে। এখানে উল্লেখ্য সিলেট বিভাগের মৌলভী বাজরের কমলগঞ্জ উপজেলায় বসবাসরত আদিবাসীরা উন্নত মানের কোমর তাত ব্যবহার করে থাকে, ওখান থেকে অভিজ্ঞ কারীঘর এনে আমাদের কর্ম এলাকার তাতীদেরকে প্রশিক্ষন প্রদান করা হয়েছে। এ কর্মসূচীর মাধ্যমে প্রায় ৩০০ শত আদিবাসী পরিবার উপকৃত হয়েছে।
টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট ৩.
সকল বয়সী সকল মানুষের জন্য সুস্বাস্থ্য ও কল্যাণ নিশ্চিতকরণ
ক্রমিক লক্ষ্যমাত্রা
৩.২ ২০৩০ সালের মধ্যে বিশ্বব্যাপী মাতৃমৃত্যুর অনুপাত প্রতি ১০০,০০০ জীবিত জন্মে ৭০ এর নিচে নামিয়ে আনা ২০৩০ সালের মধ্যে নবজাতক ও অনূর্ধ্ব ৫-বছর বয়সী শিশুর প্রতিরোধযোগ্য মৃত্যু বন্ধের পাশাপাশি সকল দেশের লক্ষ্য হবে প্রতি ১,০০০ জীবিত জন্মে নবজাতকের মৃত্যুহার কমপক্ষে ১২-তে এবং প্রতি ১,০০০ জীবিতজন্মে অনূর্ধ্ব ৫-বয়সী শিশুমৃত্যুর হার কমপক্ষে ২৫ এ নামিয়ে আনা

# উক্ত লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে এওয়ার্ড নি¤œলিখিত কার্যসমূহ সম্পাদন করেছে।
বিষয় এসডিজি লক্ষমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে বাস্তবায়িত কার্যক্রমের বিবরণ
জাতীয় টিকাদান প্রকল্পের কার্যক্রম বাস্তবায়নে অংশগ্রহণ এওয়ার্ড কর্মএলাকায় শিশুদের টিকাদান কর্মসূচির প্রচার প্রসার ও বাস্তবায়নের দিনে কর্মী কর্মকর্তা সকলেই জাতীয় এই কর্মসূচি সফলভাবে বাস্তবায়নের জন্য গ্রাম সংগঠন সমূহে টিকাদানের তারিখ, সময় এবং কেন্দ্র সংক্রান্ত তথ্য জানানো, অনুষ্টানের দিন শিশুদেরকে অভিভাবকদের মাধ্যমে কেন্দ্রে পাঠানো ইত্যাদি বিষয়ে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে কাজ করে আসছে।
৩.৭ ২০৩০ সালের মধ্যে পরিবার পরিকল্পনা, তথ্য ও শিক্ষাসহ যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য পরিচর্যা সেবায় সার্বজনীন অধিকার নিশ্চিত করা এবং প্রজনন স্বাস্থ্যকে জাতীয় কৌশল ও কর্মসূচির অঙ্গীভূত করা

# উক্ত লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে এওয়ার্ড নি¤œলিখিত কার্যসমূহ সম্পাদন করেছে।
বিষয় এসডিজি লক্ষমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে বাস্তবায়িত কার্যক্রমের বিবরণ
পরিবার পরিকল্পনা পরিবার পরিকল্পণা বিষয়ে এওয়ার্ড তার ন্মলগ্ন থেকেই এ কাজ করে আসছে। পরিবার পরিকল্পনা মন্ত্রনালয়ের জেলার দায়িত্বে নিয়োজিত উপপরিচালক পরিবার পরিকল্পনা এর সরাসরি তত্বাবদানে এবং একটি নিদৃষ্ট অঞ্চলের জন্য সেবা প্রদানের নিমিত্বে কর্মএলাকা নির্ধারণ করে উক্ত সরকারি সেবা সমূহের পাশাপাশি বাড়ি বাড়ি গিয়ে গর্ভধারণে সক্ষম মহিলাদের উদ্বুদ্ধ করন,জন্মনিয়ন্ত্রণের পদ্ধতি সমূহ সম্বন্ধে সম্মক ধারণা প্রদান,জন্মনিয়ন্ত্রন উপকরণ বিনামূল্যে সরবরাহ করা হয়েছে।
যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য পরিচর্যা সেবায় সার্বজনিন অধিকার নিশ্চিত করার জন্য নানাবিধ তথ্য সরবরাহ করা হয়েছে।
৩.৮ সকলের জন্য অসুস্থতাজনিত আর্থিক ঝুঁকিতে নিরাপত্তা, মানসম্মত অপরিহার্য স্বাস্থ্যসেবা এবং সাশ্রয়ী মূল্যে নিরাপদ, কার্যকর, মানসম্মত আবশ্যক ঔষধ ও টিকা সুবিধা প্রাপ্তির পথ সুগম করা সহ সার্বজনীন স্বাস্থ্যসেবা প্রদানের লক্ষ অর্জন

# উক্ত লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে এওয়ার্ড নি¤œলিখিত কার্যসমূহ সম্পাদন করেছে।
বিষয় এসডিজি লক্ষমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে বাস্তবায়িত কার্যক্রমের বিবরণ
ঝুকি নিরশন এসডিজির উক্ত লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য অত্র সংস্খা প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত কর্মী (নারী)দিয়ে অসুস্থতা জনিত আর্থিক ঝুকিতে না পড়ার জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য উপাত্ত সরবরাহ ও মানসম্মত অপরিহার্য স্বাস্থ্যসেবা সাশ্রয়ীমূল্যে প্রদান করা হয়েছে। উক্ত কর্মসূচি বাস্তবায়নে সর্বদা নিরাপদ, কার্যকর ও মানসম্মত ঔষধ/টিকা সুবিধা প্রাপ্তির পথ সুগম করা হয়েছে।
টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট ৪.
সকলের জন্য অন্তর্ভুক্তিমূলক ও সমতাভিত্তিক গুনগত শিক্ষা নিশ্চিতকরণ এবং জীবনব্যাপী শিক্ষালাভের সুযোগ সৃষ্টি

ক্রমিক লক্ষ্যমাত্রা
৪.১ ২০৩০ সালের মধ্যে সকল ছেলে ও মেয়ে যাতে প্রাসঙ্গিক, কার্যকর ও ফলপ্রসূ অবৈতনিক, সমতাভিত্তিক ও গুনগত প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা সম্পন্ন করতে পারে তা নিশ্চিত করা

# উক্ত লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে এওয়ার্ড নি¤œলিখিত কার্যসমূহ সম্পাদন করেছে।
বিষয় এসডিজি লক্ষমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে বাস্তবায়িত কার্যক্রমের বিবরণ
উপানুষ্ঠানিক প্রাথমিক শিক্ষা কার্যক্রম ব্র্যাকের আর্থিক ও কারিগরী সহযোগিতায় ২০০০ সাল হতে সংস্থার কর্ম এলাকা কোম্পানীগজ্ঞ উপজেলার পাড়–য়া ইউনিট অফিসের মাধ্যমে উক্ত কর্মসূচী বাস্তবায়ন শুরুহয়। কর্মসূচীর সফলতা বিবেচনা করে ব্র্যাক এ পর্যন্ত আর্থিক অনুদান অব্যাহত রেখেছে। প্রথম বারের মত ২০১৪ সালের প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায় এওয়র্ড পরিচালিত স্কুলের শতভাগ(১০০%) শিক্ষার্থী কৃতকার্য হয়েছিল এবং ২০১৫ সালে ২০টি ও ২০১৬ সালে ১০টি স্কুলের শিক্ষার্থীরাও সমাপনী পরীক্ষায় অংশগ্রহন করে এবং শতভাগ(১০০%) শিক্ষার্থি কৃতকার্য হয়। এখানে উল্লেখ্য ২০১৬ সালে সহযোগি সংস্থা ব্র্যাক প্রথম বারের মত উপকরণ ফি বাবদ শিক্ষার্থীদের নিকট থেকে শিশু শ্রেণীতে মাসিক ৬০.০০ টাকা ও প্রথম শ্রেণীথেকে পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত মাসিক ৭০.০০টাকা করে উপকরণ ফি আদায় করার নিয়ম চালু করে। বর্তমানে ৫০টি শিক্ষাকেন্দ্র চালু রয়েছে এবং এই সকল কেন্দ্রের মাধ্রমে ১৫০০ জন শিক্ষার্থিকে প্রাথমিক শিক্ষাদান করা হচ্ছে। এ প্রকল্পে ৮থেকে ১১ বছর বয়সের ভিবিন্ন সময়ের ঝরে পড়া অথবা কোন সময়ই বিদ্যালয়ে যায়নি এমন শিশুদের প্রাথমিক শিক্ষাদানের ব্যবস্থা রয়েছে। প্রতিটি শিক্ষাকেন্দ্রে ৩০ জন শিক্ষর্থী নিয়ে একজন শিক্ষক এক নাগাড়ে ৪ বছর পাঠ দান করে থাকেন। এখানে উল্লেখ্য ২০১২ সাল থেকে পঞম শ্রেনী পর্যন্ত শিক্ষাদানের ব্যবস্থা করা হয়েছে। আমাদের এ সম¯ত শিক্ষাকেন্দ্রে বাংলা, অংক, সমাজবিজ্ঞান, পরিবেশ পরিচিতি, ইংরেজী ইত্যাদি বিষয়ে হাতে কলমে শিক্ষাদান করা হয়। এ ছাড়া স্কুলের প্রতি শিক্ষার্থিদের আকর্ষণ বাড়ানোর জন্য সহশিক্ষা পাঠক্রম ও নিয়মিত পরিচালিত হয় বলে শিক্ষার্থীরা বিশেষ কারণ ছাড়া স্কুল কামাই করেনা। এখানে উল্লেখ্য ২০১৬ সালে ব্র্যাকের আর্থিীক ও কারিগরী সহায়তায় ১৫টি প্রাক প্রাথমিক স্কুল চালু করা হয়েছিল। ঐ সকল স্কুলে উপকরণ ফি বাবদ মাসিক ৬০.০০ টাকা আদায় করার কথা ছিল এবং এওয়ার্ড অনেক কষ্টের মাধ্যমে টাকা উত্তোলন করতে সক্ষম হয়েছে। ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে সফলতার সাথে ঐ সকল স্কুলের এক বছর মেয়াদী কোর্স সম্পাদন করেছে। আগামী বছরে অনুরূপ স্কুল খোলার পরিকল্পনা নেই। ২০১৭ সালে ব্র্যাকের নিয়মানুযয়ী ২০০.০০ টাকা উপকরন ফি আদায় করার শর্তসাপেক্ষে ১৫টি প্রথম শ্রেনীর স্কুল খোলার সকল প্রয়োজনীয় কাজ সম্পাদন করা হয়েছে।

উচ্চতর শিক্ষা গ্রহনের জন্য সকল শিক্ষার্থী ও তাদের অভিবাবকদেরকে আগ্রহী করার পরও যারা নানাবিধ করনে শিক্ষা জীবন এ পর্যায়েই সমাপ্ত করে, তরাও এওয়ার্ড কর্তৃক প্রদত্ব প্রাইমারী স্কুল সমাপনীর শিক্ষাটুকুকে সম্বল করে কর্মজীবনে এক জন সক্ষম ব্যক্তি হিসাবে তার জীবন যাপন করতে সক্ষম হবে বলে আমরা আশা করতে পারি । ইহাই আমাদের উপানুষ্ঠানিক শিক্ষাকার্যক্রমের সার্থকতা।
৪.২ ২০৩০ সালের মধ্যে সকল ছেলে ও মেয়ে যাতে প্রাথমিক শিক্ষার প্রস্তুতি হিসেবে প্রাক্-প্রাথমিক শিক্ষাসহ শৈশবের একেবারে গোড়া থেকে মানসম্মত বিকাশ ও পরিচর্যার মধ্য দিয়ে বেড়ে ওঠে তার নিশ্চয়তা বিধান করা

# উক্ত লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে এওয়ার্ড নি¤œলিখিত কার্যসমূহ সম্পাদন করেছে।
বিষয় এসডিজি লক্ষমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে বাস্তবায়িত কার্যক্রমের বিবরণ
প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা কর্মসূচি এওয়ার্ড ২০১৬ সালে পরীক্ষামূলক ভাবে কর্মএলাকা কোম্পানীগঞ্জের পশ্চিম ইসলামপুর ইউনিয়নে ২৫ টি প্রাক-প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপন করেছিল। প্রতিটি স্কুলে ৪-৫ বছরের ৩০ জন শিশুকে নিয়ে এক একটি কেন্দ্র স্থাপন করে ঐ গ্রামেরই একজন মহিলা শিক্ষিকা দিয়ে পাঠদান কর্মসূচি পরিচালনা করা হয়। মানসম্মত শিক্ষা প্রদানের জন্য স্কুলশিক্ষিকাকে ক্লাস শুরুর পূর্বে ১৫ দিনের মৌলিক প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়। প্রতি ৫ টি কেন্দ্রর জন্য ১ জন করে পি.ও নিয়োগ দিয়ে প্রশিক্ষণ প্রদান করে গুনগত শিক্ষার মান নিশ্চিত করে কেন্দ্র পরিচালনা করা হয়।উক্ত কর্মসূচিতে ব্রাক আর্থিক ও কারিগরী সহযোগীতা প্রদান করে আসছে।
৪.৬ নারী ও পুরুষ সহ যুবসমাজের সবাই এবং বয়স‹ জনগোষ্ঠীর একটি উল্লেখযোগ্য অংশ যাতে ২০৩০ সালের মধ্যে সাক্ষরতা ও গণন-দক্ষতা অর্জনে সফলকাম হয় তা নিশ্চিত করা

# উক্ত লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে এওয়ার্ড নি¤œলিখিত কার্যসমূহ সম্পাদন করেছে।
বিষয় এসডিজি লক্ষমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে বাস্তবায়িত কার্যক্রমের বিবরণ
বয়স্ক শিক্ষা কার্যক্রম অত্র সংস্থার ঊষালগ্ন থেকেই বয়ষ্ক শিক্ষা কার্যক্রম সংস্থার নিজস্ব তহবিলের মাধ্যমে শুরু করা হয়। ২০১৬ হতে অদ্যাবধি পর্যন্ত অনানুষ্ঠানিকভাব প্রায় ৫০০০ সমিতিভুক্ত নারী পুরুষকে স্বাক্ষরতা ও গণন-দক্ষতা অর্জনে সহায়তা প্রদান করা হয়েছে।

টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট ৫.
জেন্ডার সমতা অর্জন এবং সকল নারী ও মেয়েদের ক্ষমতায়ন

ক্রমিক লক্ষ্যমাত্রা
৫.১,
৫.২,
৫.৩,
৫.৪,
৪.৫ সর্বত্র সকল নারী ও মেয়ের বিরুদ্ধে সকল ধরনের বৈষম্যের অবসান ঘটানো
পাচার, যৌন হয়রানি ও অন্যসব ধরনের শোষণ-বঞ্চনা সহ ঘরেবাইরে সকল নারী ও মেয়ের বিরুদ্ধে সকল ধরনের সহিংসতার অবসান
শিশুবিবাহ, বাল্যবিবাহ ও জোরপূর্বক বিবাহ এবং নারী যৌনাঙ্গচ্ছেদের মতো সকল ধরনের ক্ষতিকর প্রথার অবসান
সরকারি সেবা, অবকাঠামো ও সামাজিক সুরক্ষা নীতিমালার মাধ্যমে অবৈতনিক পরিচর্যাকার্য ও গৃহস্থালি কাজের মর্যাদা ও স্বীকৃতিদান এবং খানা ও পরিবারের অভ্যন্তরে জাতীয়ভাবে যুক্তিযুক্ত অংশীদারিত্বমূলক দায়িত্বপালনকে উৎসাহিত করা
রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সামাজিক অঙ্গনে সিদ্ধান্ত গ্রহণের সকল পর্যায়ে নেতৃত্ব দানের জন্য নারীদের পূর্ণাঙ্গ ও কার্যকর অংশগ্রহণ ও সমান সুযোগ নিশ্চিত করা

# উক্ত লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে এওয়ার্ড নি¤œলিখিত কার্যসমূহ সম্পাদন করেছে।
বিষয় এসডিজি লক্ষমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে বাস্তবায়িত কার্যক্রমের বিবরণ
জেন্ডার এওয়ারনেস ২০১৬ হতে ৩১ শে ডিসেম্বর ২০১৭ পর্যন্ত ব্রাক এর আর্থিক ও কারিগরি সহযোগীতায় উক্ত কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। এওয়ার্ড কর্তৃক সংগঠিত সংগঠন সমূহের নির্ধারিত মাসিক সভায় নারী ও মেয়েদের মধ্যে সকল ধরণের বৈষম্য নিরসনের জন্য এজেন্ডা ভিত্তিক আলোচনা করা হয়। আলোচ্য সূচির বিপরীতে যে সকল সিদ্ধান্ত গৃহিত হয় তা দলীয় রেজুলেশন বহিতে লিপিবদ্ধ করা হয়। পরবর্তি পর্যায়ে লিপিবদ্ধ সিদ্ধান্ত সমূহ বাস্তবায়ন করা হচ্ছে কিনা তাও মনিটর করা হয়।
অনুরূপভাবে পাচার, যৌন হয়রানি, সকল ধরণের শোষন বঞ্চনা প্রতিরোধকল্পে পারিবারিক সৌজন্যবোধ ও সৌহার্দ্য সৃষ্টির লক্ষে ধারাবাহিকভাবে সমিতিগুলোতে আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়।
বাল্য বিবাহ বাল্যবিবাহ ও জোরপূর্বক বিবাহ নিরুৎসাহিত করার জন্য প্রতিটি সংগঠনের নেতৃস্থানীয় ৩ জন করে সদস্যকে ৩ দিন ব্যাপি জেন্ডার এওয়ারনেসের উপর প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত প্রশিক্ষকদ্বারা প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়। এখানে উল্লেখ্য উল্লেখিত বিষয়ে গ্রাম সালিশিপ্রথা নিরুৎসাহিত করা হয় এবং প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রে উপজেলা প্রসাশনের সার্বিক সহযোগীতা গ্রহনের ব্যাবস্থা করা হয়। আরো ও উল্লেখ্য ইতিমধ্যে সিলেট জেলার কোম্পানীগঞ্জ উপজেলাকে রাষ্ট্রিয় ভাবে বাল্য বিবাহমুক্ত উপজেলা ঘোষনা করা হয়েছে।
৫.খ নারীদের ক্ষমতায়নে সহায়ক প্রযুক্তি, বিশেষ করে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়ানো

# উক্ত লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে এওয়ার্ড নি¤œলিখিত কার্যসমূহ সম্পাদন করেছে।
বিষয় এসডিজি লক্ষমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে বাস্তবায়িত কার্যক্রমের বিবরণ
ইউনিয়ন অফিসের ই-সেবা গ্রহনে উদ্বুদ্ধ করন। উল্লেখিত বিষয়ে নারীদের ক্ষমতায়নের জন্য ইউনিয়ন ভিত্তিক সরকারি ই-সেবা কেন্দ্রের সাথে পরিচিত করে এবং বিশেষ ব্যবস্থায় গ্রামীন পিছিয়ে পড়া নারীদেরকে বৈদেশিক চাকুরির সুযোগ করে নেওয়া এবং একই সেবা কেন্দের মাধ্যমে চাকুরী সংক্রান্ত তথ্য সংগ্রহ ও আবেদন করার ইত্যাদি বিষয়ে এওয়ার্ড স্বীয়কর্মীদ্বারা এ সকল সেবা নিশ্চিত করে নারীদের ক্ষমতায়নের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।

টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট ৬.
সকলের জন্য পানি ও পয়ঃনিষ্কাশনের টেকসই ব্যবস্থাপনা ও প্রাপ্যতা নিশ্চিত করা।

ক্রমিক লক্ষ্যমাত্রা
৬.১

৬.২ ২০৩০ সালের মধ্যে, নিরাপদ ও স্বল্পমূল্যের খাবার পানিতে সকলের সর্বজনীন ও সমতাভিত্তিক প্রবেশাধিকারের লক্ষ্য অর্জন।

নারী ও মেয়েসহ অরক্ষিত পরিস্থিতিতে বসবাসকারী জনগোষ্ঠীর চাহিদার প্রতি বিশেষ দৃষ্টি রেখে ২০৩০ সালের মধ্যে সকলের জন্য পর্যাপ্ত ও সমাতাভিত্তিক পয়ঃনিষ্কাশন ও স্বাস্থ্যবিধিসম্মত জীবনরীতিতে প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করা এবং খোলা জায়গায় মলত্যাগের অবসান ঘটানো।

# উক্ত উভয় লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে এওয়ার্ড নি¤œলিখিত কার্যসমূহ সম্পাদন করেছে।
বিষয় এসডিজি লক্ষমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে বাস্তবায়িত কার্যক্রমের বিবরণ
ওয়াটসান কর্মসূচী সার্বিক উন্নয়নের জন্য প্রয়োজন সমন্নিত উন্নয়ন প্রচেষ্টা। এওয়ার্ড তার সীমিত সম্পদ ও লোকবলের মাধ্যমে কর্ম এলাকায় এরূপ একটি সমন্নিত উন্নয়ন কর্মকান্ড পরিচালনায় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।
তাই কর্ম এলাকায় নিরাপদ পানি ও স্বাস্থ্য সম্মত পয়ঃপ্রণালী প্রতিষ্ঠায় আত্মনিয়োগ করে। সাধারণ মানুষের মাঝে সচেতনা সৃষ্টির মাধ্যমেই এ কর্মসূচীর সফল বাস্তবায়ন সম্ভব বলে এওয়ার্ড বিশ্বাস করে।
এ পর্যন্ত কর্ম এলাকায় শতাধিক ইসু্যু ভিত্তিক সভার মাধ্যমে মানুষের মাঝে নিরাপদ পানি কিভাবে পাওয়া যায় এবং কিভাবে সল্প-ব্যয়ে স্বাস্থ্য সম্মত পায়খানা তৈরী করা যায় এমন সচেতনতা সৃষ্টি করতে সক্ষম হয়েছে।
উক্ত কর্মসূচীর আওতায় সংস্থার একজন কর্মীকে প্রশিক্ষণ প্রদান এর মাধ্যমে কর্ম এলাকা স্থাপিত নলকূপ সমূহের আর্সেনিক পরীক্ষা করার কাজ করা হয়েছে। বিগত বছরপর্যন্ত ২৭৭ টি নলকূপ এ আর্সেনিক পরীক্ষা সম্পাদন করা হয়েছে। এ এলাকার নলকূপের পানিতে আর্সেনিক নেই অথবা এর হার খুবই নগন্য যাহা সহনীয় মাত্রার মধ্যে। এছাড়াও বিষয়টিকে অধিকতর গুরুত্ব প্রদান করতঃ প্রতিটি দলীয় সভায় এ নিয়ে আলোচনা করা হয়।

টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট ৯.
অভিঘাতসহনশীল অবকাঠামো নির্মাণ, অন্তর্ভুক্তিমূলক ও টেকসই শিল্পায়নের প্রবর্ধন এবং উদ্ভাবনার প্রসারণ

ক্রমিক লক্ষ্যমাত্রা
৯.গ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ব্যবহার উল্লেখযোগ্য পরিমাণে বৃদ্ধি করা এবং ২০২০ সালের মধ্যে স্বল্পোন্নত দেশগুলোতে ইন্টারনেটে সর্বজনীন ও মূল্যসাশ্রয়ী প্রবেশাধিকার প্রদানে আন্তরিকভাবে সচেষ্ট হওয়া।

# উক্ত লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে এওয়ার্ড নি¤œলিখিত কার্যসমূহ সম্পাদন করেছে।
বিষয় এসডিজি লক্ষমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে বাস্তবায়িত কার্যক্রমের বিবরণ
ঊফঁপধঃরড়হ ড়হ ড়হষরহব পড়সসঁহরপধঃরড়হ ফবাবষড়ঢ়সবহঃ রহ ৎঁৎধষ ঈড়ষষবমব / ঝপযড়ষষ ংঃঁফবহঃং রহপষঁফরহম ঃবধপযবৎং. এওয়ার্ড এর এই প্রকল্পটি দাতা সংস্থাঃ ডওঝঐঘঈখওঈক. টক. এর আর্থীক সহযোগিতায় সিলেট জেলার কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ৬ টি স্কুল এন্ড কলেজে বাস্তবায়ন করা হয়। প্রকল্পটির মেয়াদকাল ছিল এপ্রিল / ২০১৫ হতে মার্চ ২০১৬ পর্যন্ত ।
প্রকল্পটির পঠভুমিঃ
এওয়ার্ড ১৯৯৮ইং সাল থেকে সিলেট জেলার কোম্পনীগঞ্জ উপজেলায় একটি স্থানীয় সেচ্ছাসেবী সংস্থা হিসেবে কাজ শুরু করে। তখন ঐ উপজেলায় কোন জাতীয় অথবা স্থানীয় এনজি কর্মরত ছিল না। তৃনমূল জনসংগঠন তৈরী করে দারিদ্র বিমোচন, শিক্ষার প্রসার ও নারীর ক্ষমতায়নের উপর দেশীয় দাতা সংস্থার আর্থিক ও কারীগরি সহায়তায় নানাবিধ উন্নয়ন কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। বর্তমান সরকার বাংলাদেশ কে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয় ঘোষনার পর থেকে আমরাও অত্র কর্ম এলাকায় এ ব্যপারে সহযোগীতামূলক কাজ করার উদ্যোগ গ্রহন করি। সার্বিক উন্নয়নের পথে জনসাধারন কে ব্যগবান করার লক্ষ্য নিয়েই আধুনিক সমাজে বসবাস উপযোগী করার জন্য ২০১৪ সালে দলীয় সদস্যদের নিয়ে উঠান বৈঠক, দলীয় সাপ্তাহিক সভা এবং ইস্যু ভিত্তিক মাসিক গ্রাম সভায় বিস্তারিত আলাপ-আলোচনা করে ডিজিটাল বাংলাদেশের উন্নয়ন প্রকৃয়ার সাথে সম্পৃক্ত হয়ার উদ্যোগ গৃহীত হয়। এ লক্ষ্য পুরনের জন্য প্রথমেই কম্পিউটার ব্যবহারের শিক্ষা প্রদানের সিদ্ধান্ত হয়। গ্রামীন সভায় প্রশ্ন আসে এ শিক্ষা কাদেরকে দেয়া হবে বা কারা এ শিক্ষা গ্রহন করতে পারবে? তখন সমাজের কতিপয় শিক্ষিত সূধীজন এবং খানিক অগ্রসর লোকজন স্কুল/ কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের কে কম্পিটারের প্রাথমিক স্তরের শিক্ষা প্রদানে সিদ্ধান্ত হয়। অতপর ছাত্র-ছাত্রীদেরকে শিক্ষা দেয়ার পাশাপাশি ঐ সকল স্কুল কলেজের কিছু সংখ্যক শিক্ষককেও এ শিক্ষায় শিক্ষিত করার প্রস্তাব গৃহীত হয়। কেননা প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা প্রশিক্ষণ গ্রহনের পর তা ধরে রাখতে হলে অভিভাবক প্রয়োজন। এমতাবস্থায় বাংলাদেশ সরকার কতিপয় স্কুল-কলেজে একটিকরে কম্পিটার প্রদানের আশ্বাস প্রদান করে। এওয়ার্ড এই সুযোগ কাজে লাগানোর সিদ্ধান্ত নিয়ে এই প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য দৃঢ় প্রতিজ্ঞ হয়।

প্রকল্পটির যৌক্তিকতা
অন লাইন শিক্ষার মাধ্যমে মানুষ এখন অজপাড়া গায়ের একটি ইউনিয়নে সরকারী ভাবে প্রদত্ত এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে কাজের সন্ধান, বিদেশে চাকুরীর আবেদন, বিভিন্ন ফরম পুরন সহ নানা বিধ উন্নয় কর্ম কান্ডে অংগ্রহন করতে পারছে। কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার মত একটি পশ্চাৎপদ উপজেলায় যদি কতিপয় ছাত্র-ছাত্রী এবং শিক্ষককে এই প্রশিক্ষণ দেয়া যায় তাহলে তারা পুরো সমাজের সাধারন মানুষকে এ ক্ষেত্রে উল্লেখ যোগ্য সহযোগীতা করতে পারবে। এ ছাড়াও বাংলাদেশ সরকারের রূপকল্প-২০২১ বাস্তবায়নে এ প্রকল্পটি গুরুত্বপূর্ন ভ’মিকা রাখতে পারবে বলে আমাদের ধারনা।
উদ্দেশ্যসমূহ ঃ
অন লাইনে শিক্ষা গ্রহনের ক্ষেত্রে ইতিবাচক পরিবেশ নিশ্চিত করনের পাশাপাশি অনলাইন মাধ্যম ব্যবহার কারীগন তাদের অধিকার ও নানামূখী তথ্য সংগ্রহ করবে। এবং সমাজের সাধারন মানুষের মাঝে তা ছড়িয়ে দিয়ে উন্নয়নের পথ সুগম করতে সাহায্য করতে পারবে। শিক্ষার্থীগণ অনলাইনের মাধ্যমে উন্নতমানের জ্ঞান অর্জন করে প্রকৃত জ্ঞানী ও গুনি হয়ে সমাজের নানাবিধ উন্নয়মূখী কর্মকান্ডে অংশ গ্রহন করতে পারবে।
সম্পাদি কার্যক্রমের বর্ননাঃ
নির্বাচিত স্কুল/ কলেজের নামঃ
ক্রমিক নং শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ওরিয়েন্টেশন গ্রহকারীর সংখ্যা মোট

ছাত্র ছত্রী শিক্ষক
০১ কোম্পানীগঞ্জ থানা সদর উচ্চবিদ্যালয় ২৮ ৩৮ ০৭ ৭৩
০২ শহীদ স্মৃতি টুকের বাজার উচ্চবিদ্যালয় ২০ ২০ ০৫ ৪৫
০৩ ছনবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয় ২৮ ৪০ ০৪ ৭২
০৪ পাড়–য়া আনোয়ারা উচ্চবিদ্যালয় ও কলেজ ২০ ৫৭ ০৯ ৮৬
০৫ রনিখাই হুমায়ূন রশিদ চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয় ৫২ ৬৪ ০৮ ১২৪
০৬ ভাটারাই উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ ৫০ ৭৭ ০২ ১২৯
মোট ১৯৮ ২৯৬ ৩৬ ৫২৯
অর্জিত ফলাফল
ক্রমিক সংখ্যা অর্জিত ফলাফল
১ একটি পশ্চাৎপদ উপজেলার শিক্ষার্থীদের মাঝে কম্পিটারের মাধ্যমে অনলাইন ব্যবহার করার আগ্রহ সৃষ্টি হয়েছে।

২ কোম্পানীগনজ উপজেলার মত একটি স্বল্প শিক্ষিত এলাকার শিক্ষার্থীরা অন লাইনের মাধ্যমে শিক্ষা অর্জনের নানা মূখী সুবিধা গ্রহন করবে
৩ পাড়াগাঁয়ের কতিপয় শিক্ষক অন লাইন সমন্ধে সম্যক ধারণা পেয়েছেন এবং নিজেরা তা প্রয়োগ করবেন এবং তাদের দেখাদেখি অন্যান্য শিক্ষকগন ও এ ব্যাপারে আগ্রহী হবেন।
৪ পশ্চাদপদ কোম্পানীগজ্ঞ উপজেলার অন্যান্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ইন্টারনেট ব্যবহারের মাধ্যমে অনলাইনে শিক্ষা অর্জনের সাড়া জেগেছে। আশাকরা যায় এই মহতি উদ্যোগ শিক্ষা অঙ্গনে মানসম্পন্ন শিক্ষা চর্চার একটি ভাল ক্ষেত্র তৈরী করতে পেরেছে। যা আগামীতে আরোও সম্প্রসারণ হবে।
৫ বর্তমান সরকারের মাধ্যমে গৃহীত রূপকল্প – ২০২১ বাস্তবায়নের সুযোগ সৃষ্টি করবে।

এসডিজির লক্ষ্য অর্জনের নিমিত্বে এওয়ার্ড কতৃক আগামী ৫ বছরের কর্মপরিকল্পনা
টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট- ১,২,৩,৪,৫,৬ ও ৯ এর যে সকল লক্ষ্যমাত্রায় এওয়ার্ড ২০১৬ থেকে ডিসেম্বর ২০১৭ পর্যন্ত কার্যক্রম বাস্তবায়ন করেছে সেই সকল লক্ষ্য মাত্রার অসম্পূর্ণ অথবা আংশিকভাবে কার্যক্রম বাস্তবায়ন করেছে তার প্রতিটি ক্ষেত্রেই আগামী ০৫ বছর মেয়াদি কর্মপরিকল্পনায় অর্ন্তভূক্ত করা হবে। অত্র সংস্থার সাধারণ পরিষদ সদস্য এবং কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্যগন আগামী ০৫ বছরের জন্য নির্ধারিত এসডিজি এর লক্ষ্য মাত্রা অর্জনে অঙ্গিকারাবদ্ধ।চলমান প্রকল্পসমূহকে বেগবান করার জন্য প্রয়োজনীয় কর্মীপ্রশিক্ষনের ব্যবস্থা ও কর্মপরিকল্পনায় অর্ন্তভূক্ত করা হয়েছে। এখানে উল্লেখ্য এওয়ার্ড একটি স্থানীয় সংস্থা হিসেবে সর্বদাই দেশীয় ও বৈদেশিক সাহায্য প্রাপ্তির উপর নির্ভরশীল। তাই আগামী ০৫ বছরের এ কর্মপরিকল্পনা বাস্বায়ন করার জন্য দেশী-বিদেশী প্রকল্প প্রাপ্তির জন্য যথাযথ প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখবে। আমরা আশাকরি সদাশয় সরকার এ ব্যাপারে সার্বিক সহযোগীতা প্রদানে সচেষ্ট থাকবে।